Sunday, July 31, 2011

মহাকাণ্ড ইন বেইলিরোড। (Part 2)

বেইলিস্টার এর সামনে আমরা মিলিত হলাম। তারপর আমরা সবাই আমার ইউনিভার্সিটির সামনে গেলাম। সেখানে অনেক আড্ডা হল, মজা ও গল্প হল। এরই মধ্যে বৃষ্টি শুরু হল। আমরা তিনজন ভিখারুননিসা কলেজের সামনে ছাওনির নিচে বইসা বিড়ি খাইতাছি, আর পিনিক নিতাসি। সুজন মামাতো চরম চরম গপ্প কইতাসে। খুব মজা পাইসি ওই দিন। রাত ১১ টা সময় আমরা বাসার দিকে রওনা দেই। সুজন পুরান ঢাকা, আমি মতিঝিল আর SAM উত্তরা।
আমি SAM রে মালিবাগ থেকে ১১.৩০ এ অনেক কসটে একটা বাস এর লাস্ট Trip এ ওঠাইয়া দেই।

Saturday, July 30, 2011

মহাকাণ্ড ইন বেইলিরোড। (Part 1)

গতকাল ইউনিভার্সিটি থেকে বাসায় আসা মাত্রই SAM ফোন দিল, সে নাকি বেইলিরোড আসতাছে। কি আর করার ছুটলাম আবার বেইলিরোড এর ধারে। রিশকা থাইকা ঝকন ই শান্তিনগর মোর এ নামতাসি, তকনই দেখি সামনে সানজিনা। শান্তিনগর এ নাইমা অশান্ত হইয়া গেলাম। সে আমার দিকে তাকাইতে ছিল। আমি ওরদিকে নাতাকাইয়া নিচের দিকে তাকাইয়া চলে আশলাম। সে এটা অনুভব করল আমি বুজতে পারলাম। সে রাম পুরা যাওয়ার জন্য রিক্সা খুজতেছিল। যাই হোক আমি আমার পিনিক এ চইলা আইলাম। তার দিকে তাকানুর সময় আমার হল না। জিনিস টা কি ভাল হল না খারাপ হল তা বুজতে পারছিনা। সে ই তো আমাকে avoid করে। বরং আমি তারে avoid কইরা তার ই ওপকার করলাম। তার আর কষ্ট কইরা আমরে avoid করতে হইলনা।
এর পর গেলাম বেইলি স্টার এর নিচে আর গিয়াই SAM এর হাতে একটা বন খাইলাম, কারন আমি ১ ঘণ্টা late কইরা গেছিলাম......(চলবে)

Wednesday, July 6, 2011

হটাৎ এক বছর পর সানজিনার সাথে দেখা !!!!

গতকাল ইউনিভার্সিটি থেকে আসার পথে সন্ধ্যায় বেইলি রোড এর বেইলিস্টার মার্কেট এর নিচে সানজিনা কে দেখলাম।
দেখে মনটা খুব খারাপ হয়ে গেল। দের বছর হল সে আমাকে ছেড়ে চলে গেছে। তার সাথে তার বান্ধবি ও দুই জন ছেলে ছিল। তাকে আমি দেখলাম প্রায় এক বসর পর। কথা হয় নি। সুধু দূর থেকে এক নজর দেখলাম। সে ও আমাকে দেখেছে, কিন্ত না দেখার ভাণ করল। ভালবাসার মর্ম সে বুঝে না। আর কখনও বুজবেও না। তার কাছ থেকে ভালবাসা চেয়ে সুধু ভাল বাঁশ ই পেলাম।
যাই হোক সব ই কপাল। কপালের লিখা আটকায় কে?
দুপুর বেলা যখন তার দুই বান্ধবিকে আমার ইউনিভার্সিটির সামনে দেখলাম, তখনই বুজলাম আজ কপালে দুর্গতি আছে। ঠিক তাই হল। সন্ধ্যায় বেইলিস্টার মার্কেট এর নিচে সানজিনা কে দেখলাম। আর মন টা গেল খারাপ হয়ে।
আমি এত চাই তাকে ভুলে যেতে না দেখতে, কিন্ত পারি না। কেন যে সে সামনে এসে পড়ল।
আর আমাকে ৭ই দিনের জন্য পিছিয়ে দিল।
বিধাতার কাছে আমার একটাই পার্থনা... যেন আমি তাকে ভুলে যেতে পারি। তার মত মেয়েছেলের আমার কোন দরকার নাই।
যে আমাকে চায় না, আমি তাকে চাইতে যাব কেন।
আজ থেকে আমি তাকে চিনি না। আর কোন দিন চিনতে চেষ্টা ও করব না।
আমিন। বিধাতা আমার সহায় হোন।
Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...